1. admin@jamunarbarta.com : যমুনার বার্তা : যমুনার বার্তা
  2. shohel.jugantor@gmail.com : যমুনার বার্তা : যমুনার বার্তা
বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন

মুরাদের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন রাষ্ট্রপতি

  • প্রকাশ বুধবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৬০ জন পঠিত

মঙ্গলবার রাতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে মুরাদ হাসানের পদত্যাগপত্র গ্রহণের তথ্য নিশ্চিত করা হয়। রাতেই তা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়েছে। তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

নারীর প্রতি অবমাননাকর বক্তব্য ও ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে মুরাদ হাসান মঙ্গলবার ওই পদত্যাগপত্র পাঠান। মঙ্গলবার রাতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে মুরাদ হাসানের পদত্যাগপত্র গ্রহণের তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। রাতেই তা গেজেট আকারেও প্রকাশ করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতির আদেশে প্রজ্ঞাপনে সই করেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিবের রুটিন দায়িত্বে থাকা সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো. কামাল হোসেন। তাতে বলা হয়েছে, ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব মো. মুরাদ হাসান-এর পদত্যাগপত্র মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক গৃহীত হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী বরাবর লেখা পদত্যাগপত্রের বিষয়ে মুরাদ লিখেছেন, ‘প্রতিমন্ত্রীর পদ হতে ব্যক্তিগত কারণে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ।’ ভেতরে লিখেছেন, ‘গত ১৯ মে ২০২১ (প্রকৃতপক্ষে ২০১৯) আমাকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়। আমি অদ্য ০৭. ১২. ২০২১ তারিখ হতে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব হতে ব্যক্তিগত কারণে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করতে ইচ্ছুক।… আমাকে দায়িত্ব হতে অব্যাহতি প্রদানের লক্ষ্যে পদত্যাগপত্রটি গ্রহণে আপনার একান্ত মর্জি কামনা করছি।’

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী হিসেবে মুরাদ হাসান তার পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে। তবে সাংবিধানিক ক্ষমতাবলে তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এ বিষয়ে সংবিধানের ‘প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভা’ শিরোনামে দ্বিতীয় পরিচ্ছেদে তথা ৫৮ অনুচ্ছেদের ১-এ বলা হয়েছে: ‘প্রধানমন্ত্রী ব্যতীত অন্য কোন মন্ত্রীর পদ শূন্য হইবে, যদি-(ক) তিনি রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করিবার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট পদত্যাগপত্র প্রদান করেন।’

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর পদত্যাগপত্র পাঠান তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। পরে তা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়। এর আগে প্রতিমন্ত্রীর দপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন মুরাদ হাসান। প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়াতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পাওয়ার পর থেকে মুরাদ হাসানের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

প্রতিবেদক জানতে পেরেছে, মুরাদ হাসান ধানমণ্ডির বাসা থেকে সোমবার বেলা ১১টার দিকে বের হন। এরপর ২৪ ঘণ্টা কেটে গেলেও তিনি বাসায় ফেরেননি। মুরাদের বাড়ির নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্য ও সিকিউরিটি গার্ডরা মঙ্গলবার জানান, বাসা থেকে বের হওয়ার পর একদিন পেরিয়ে গেলেও মুরাদ বাসায় ফেরেননি।

সিকিউরিটি গার্ড সুমন বলেন, ‘স্যার কালকে বের হইছেন, এরপর আর আসেন নাই। কোথায় গেছেন জানি না।’ একই কথা জানান বাড়ির নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশের একজন সদস্য। তিনি বলেন, ‘রোববার রাতে বাসায় আসেন মুরাদ হাসান। সোমবার বেলা ১১টার দিকে বের হয়েছেন। এখনও ফেরেননি।’

নারীর প্রতি ‘অবমাননাকর’ ও ‘বর্ণবাদী’ মন্তব্য করে আগে থেকেই ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে ছিলেন মুরাদ। এর মধ্যে ফাঁস হওয়া একটি ফোনালাপে এক চিত্রনায়িকাকে ধর্ষণের ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হন প্রধানমন্ত্রী। মঙ্গলবারের মধ্যে তাকে প্রতিমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে বলে জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সাংবাদিকদের সোমবার রাতে তিনি বলেন, ‘আজ সন্ধ্যায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়েছে এবং আমি আজ রাত ৮টায় প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে বার্তাটি পৌঁছে দেই।’ প্রতিমন্ত্রী রোববার গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বললেও সোমবার দিনভর নিজেকে আড়াল করে রাখেন। রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানে তার যোগ দেয়ার কথা থাকলেও সেখানে যাননি তিনি।

মুরাদ হাসান তিন দিন আগে একটি অনলাইন টক-শোতে এসে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমানকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন।

এ নিয়ে তুমুল আলোচনার মধ্যেই ফেসবুকে একটি টেলিফোন আলাপ ভাইরাল হয়। বলা হচ্ছে, ফোনালাপের এক প্রান্তের কণ্ঠটি মুরাদের। তাতে বলতে শোনা যায়, তিনি একজনকে ফোন করে এক চিত্রনায়িকাকে তার কাছে নিয়ে যেতে বলেন। এই কথোপকথনে যে ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে, তা নিয়ে নতুন করে তুমুল সমালোচনা শুরু হয়।

মুরাদকে বরখাস্তের দাবি জানান ৪০ জন নারী অধিকারকর্মী। বিএনপির পক্ষ থেকেও প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করা হয়। বলা হয়, মুরাদের ভাষা সভ্য নয়। অনলাইন সাক্ষাৎকার প্রকাশ হওয়ার পর প্রতিমন্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, তিনি যা বলেছেন তার জন্য দুঃখিত নন। বক্তব্য প্রত্যাহার করবেন না। আর সমালোচনা তিনি গায়ে মাখেন না।

ছাত্রলীগের নারী নেত্রীরাও বলেন, মুরাদের মতো একজন নেতা মন্ত্রিসভায় থাকতে পারেন না।

চারদিকে তুমুল সমালোচনার মধ্যে আসে মুরাদকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা। মুরাদকে মঙ্গলবারের মধ্যে পদত্যাগ করতে বলায় সরকারপ্রধানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অনেকে। এমনটি বিএনপির কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় নেতাও প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘আমরা তার কথা এবং আচরণে বিব্রত ও লজ্জিত।’

মুরাদ জামালপুরের সরিষাবাড়ী থেকে ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচনে তার আসনটি জোটের শরিক জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেয়া হয়। তবে একাদশ সংসদ নির্বাচনে আবার তাকে মনোনয়ন দেয় আওয়ামী লীগ।

সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর মুরাদকে প্রথমে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী করা হয়। ওই দায়িত্বে থাকার সময় একটি বেসরকারি হাসপাতালে মুরাদের আচরণ নিয়ে প্রশ্ন ওঠার পর তাকে তথ্য প্রতিমন্ত্রী করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো বার্তা দেখুন
©২০১৫ ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Customized By BreakingNews